শিরোনাম
প্রচ্ছদ / জাতীয় / এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের রিসার্চ এন্ড ফার্ম বেইজড ক্যাম্পাসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষা মন্ত্রী

এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের রিসার্চ এন্ড ফার্ম বেইজড ক্যাম্পাসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষা মন্ত্রী

এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের রিসার্চ এন্ড ফার্ম বেইজড ক্যাম্পাসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষা মন্ত্রী

হাটহাজারী প্রতিনিধি: শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব প্রাপ্ত মন্ত্রী নরুল ইসলাম নাহিদ এমপি বলেছেন, নতুন প্রজন্মকে আধুনিক বাংলাদেশের নির্মাতা হিসাবে গড়ে তুলতে আধুনিক প্রযুক্তি এবং জ্ঞান শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে হবে। এজন্য বর্তমান সরকার দলীয় শিক্ষানীতি নয়। জাতীয় শিক্ষানীতি প্রনয়ন করেছে। এ শিক্ষানীতিতে কোন দলের দ্বিমত নেয়। দেশের বিশ্ব বিদ্যালয় গুলেকে আন্তজার্তিক মানের বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করতে সরকার  আন্তরিক ভাবে কাজ করছে। তাছাড়া শিক্ষকদের মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য সরকার নতুন বেতন পে-স্কেল ঘোষণা করেছে। সরকার ঘোষিত পে-স্কেল অনুযায়ী বেতন প্রদানের উদ্যোগ গ্রহন করেছে। সরকার গতানুগতীক শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে বের হয়ে বর্তমান প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের জ্ঞান চর্চ্চা জ্ঞান অনুসন্ধান ও জ্ঞান গবেষণার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। তিনি ১১টা ৫৫ মিনিট থেকে ১২ টা ২ মিনিট পর্যন্ত দীর্ঘ বক্তব্যে শিক্ষা জ্ঞান গবেষণার ব্যাপারে নানা বিষয় তুলে ধরেছেন।
তিনি গতকাল শনিবার (২ এপ্রিল) চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের হাটহাজারী পৌরসভার মধ্য পাহাড়তলী মৌজায় রিসার্চ এন্ড ফার্ম বেইজড ক্যাম্পাস এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বক্তব্যের উল্লেখিত অভিমত ব্যক্ত করেন।
শিক্ষা মন্ত্রী বলেন এ সরকার ক্ষমতায় আসার পর ২০১০ সালে দেশের সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয় সমূহকে একসাথে এনে জ্ঞান চর্চ্চার কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলার উদ্যোগ গ্রহন করেছে। এ উদ্যোগ বাস্তবায়নের জন্য বিদেশের কেউ এগিয়ে আসবেনা। এদেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে শিক্ষা ক্ষেত্রের উন্নয়নের জন্য সকলকে কাজ করতে হবে। শিক্ষার সাথে  দেশেন উন্নয়ন জড়িত। বর্তমানে ছেলে ও মেয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে কিছু অসমতা রয়েছে। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে ছাত্র ও ছাত্রীর মধ্যে শিক্ষার ক্ষেত্রে সমতা আসবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় একটি বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় বলে উল্লেখ করে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের হাটহাজারীস্থ রিসার্চ এন্ড ফার্ম বেইজড ক্যাম্পাস এর প্রতিষ্ঠা দেশে একটি নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে। বিগত বছর দেশে আগুন সন্ত্রাস থাকলেও সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্ঠা ও সদিচ্ছার কারণে শিক্ষা বর্ষের প্রথম দিন প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিয়েছেন। একই ভাবে এবছর শিক্ষা বর্ষের প্রথম দিন শুক্রবার বন্ধ থাকা সর্তেও শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিয়েছেন বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন দেশের লোকজন সবকিছু শুধু বিদেশী পছন্দ করেন।একমাত্র দেশী মুরগী ছাড়া। বিশ্ববিদ্যালয় হাটহাজারী ক্যাম্পাসে গবাদী পশু,হাঁস মুরগী,মাছ চাষ এবং ফুট প্রসেসিং জোন প্রতিষ্ঠা করে পছনশীল ফলফলাদী যাতে সারাবছর খাওয়া যায় সে উদ্যোগ গ্রহন করেছে সরকার।এজন্য ইতিমধ্যে নানা যন্ত্রপাতি ক্রয় করার জন্য অর্থবরাদ্ধ প্রদান করা হয়েছে বলে ও তিনি উল্লেখ করেন।
অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি পানি সম্পদ  মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব প্রাপ্ত মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম এমপি বলেছেন, বাংলাদেশ উন্নয়নের একটি মডেল। একসময় বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি হিসাবে যারা আখ্যায়িত করেছেন তারাই এখন বাংলাদেশকে উন্নয়নের মডেল বলছেন। এ দেশকে এখন ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে কোথায়ও যেতে হয়না। বরং দেশে এখন খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ । সবজি উৎপাদনের বাংলাদেশ পৃথিবীর ২য় স্থানে রয়েছে। মিঠা পানির মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ পৃথিবীর ৪র্থ এবং অন্যন্যে মাছ উৎপাদনে ৬ষ্ট স্থানে রয়েছে। এক সময় দেশের সাড়ে সাতকোটি মানুষ উপোস করেছে। বর্তমানে দেশের জনসংখ্যা দ্বিগুণ হওয়ার সর্তেও দেশে খাদ্যের অভাব নেই। তিনি হাটহাজারীতে দুইটি কলেজ, একটি বালক ও একটি বালিকা বিদ্যালয় সরকারি করণের জন্য দাবি জানান।তাছাড়া কৃষি ইনষ্টিটিউটকে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় করারও প্রস্তাব করেন।
চট্টগ্রাম বিশ্ব বিদ্যালয়ের উপচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান স্বপ্ন দেখে ছিলেন দেশের গরীব জনসাধারণ যাতে মোটা ভাত ও মোটা কাপড় পড়ে শান্তিতে থাকতে পারেন। এজন্য তিনি স্বাধীনতা সংগ্রামের ডাক দিয়েছেন। জাতীর জনকের সে স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য বর্তমান সরকারের প্রধান মন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর কন্যা কাজ করে যাচ্ছেন। দেশে এখন খাদ্য ঘাটতি নেই। প্রতিবছর ২৩% হারে আবাদী জমি কমলেও দেশ খাদ্য স্বয়ং সম্পূর্ণ হয়ে খাদ্য রপ্তানি করছে।
চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্রশাসক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট মেম্বার এম এ সালাম বলেছেন, হাটহাজারী কৃষি ইনষ্টিউটিটকে কৃষি কলেজে উন্নিত করে  দেশে কৃষি শিক্ষার ব্যাপারে শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করার প্রস্তাব করেছেন। তাছাড়া ভিত্তি প্রস্তর স্থাপিত বিশ্ববিদ্যালয় রিসার্চ এন্ড ফার্ম বেইজড ক্যাম্পাসকে বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করে দেশের সার্বিক শিক্ষা ব্যবস্থার পরিবর্তন করতে পারলে দেশ এগিয়ে যাবে। তিনি কৃষি ইনষ্টিটিউটকে কৃষি কলেজ করা হাটহাজারী বাসীর প্রাণের দাবি বলে উল্লেখ করেন। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য গৌতম বুদ্ধ দাস এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের  উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীন আকতার,অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা দেবময় দেওয়ান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন প্রফেসর ড. নুরুল আফছার খান। সিভাসু এর শিক্ষক সহকারী অধ্যাপক তাসনিম ইমাম ও ড. সুব্রত কুমার শীল এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত  সভার শুরুতে পবিত্র কুরআন থেকে তোলোয়াত করেন মাওলানা হাফিজ আহম্মদ।
সভাপতিত্ব বক্তব্যে সিভাসুর উপাচার্য বলেন দেশে সেইপফুড তৈরি করে বিদেশে রপ্তানী করার মাধ্যমে বৈদেশীক মুদ্রা অর্জন এ বিশ্ববিদ্যালয় কাজ করছে। তাছাড়া বর্তমানে যান্ত্রিক নাঙ্গলের কারণে গৃহস্থ বাড়িতে গবাদী পশু পালন কমে যাচ্ছে। গৃহস্থদের গবাদী পশু পালনে উৎসাহিত করতে এবং খাদ্যের সাথে প্রোটিনের চাহিদা মিঠাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

পড়ে দেখুন

পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন ও দোয়া মোনাজাত

॥ ডেস্ক রিপোর্ট ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করে দোয়া ও …