শিরোনাম
প্রচ্ছদ / আন্তর্জাতিক / আইএসের বিরুদ্ধে ইরাকি বাহিনীর অগ্রগতি

আইএসের বিরুদ্ধে ইরাকি বাহিনীর অগ্রগতি

ইরাকের যে দুটি প্রধান শহর এখনও আইএসের দখলে আছে রাজধানী বাগদাদের ৪৫ কিলোমিটার পশ্চিমের শহর ফাল্লুজা তার মধ্যে অন্যতম বলে জানিয়েছে বিবিসি।
ফাল্লুজা রক্ষায় নিকটবর্তী টাউন কারমায় আইএস একটি প্রাথমিক প্রতিরক্ষা বলয় গড়ে তুলেছিল। সেই কারমা ইরাকি সেনাবাহিনীর অধীনে চলে এসেছে বলে জানিয়েছেন বিবিসির প্রতিনিধি।
ফাল্লুজার কাছে প্রচুর সংখ্যক অভিজাত সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। এরা শহরটিতে চূড়ান্ত আক্রমণের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে।
তবে এসব সত্বেও ফাল্লুজার উত্তরে আইএসের এক গাড়িবোমা হামলায় ইরাকি বাহিনীর বেশ কয়েকজন সেনা হতাহত হয়েছেন। শহরের দক্ষিণ দিকে আইএসের চালানো একটি হামলা হেলিকপ্টার গানশিপ ব্যবহার করে রুখে দিয়েছে ইরাকি বাহিনী।
গত বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনীর বিমান হামলায় আইএসের ফাল্লুজা কমান্ডার মাহের আল বিলাবিসহ প্রায় ৭০ জন আইএস যোদ্ধা নিহত হন বলে জানিয়েছে ওয়াশিংটন। গোষ্ঠীটির বিরুদ্ধে বিমান হামলা চালিয়ে অভিযানে ইরাকি বাহিনীকে সমর্থন যোগাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনী।
কারমা পুনর্দখল করে টাউনটির উপর নিয়ন্ত্রণ দৃঢ় করেছে ইরাকি বাহিনী। টাউনটির ভবনগুলোর দেয়ালে দেয়ালে ‘ধন্যবাদ, ইরান’ লিখে রেখে গেছে ইরাকি বাহিনীর সঙ্গে যোগ দেওয়া বেসামারিক শিয়া বাহিনীর যোদ্ধারা। এসব শিয়া বাহিনী ইরানের সমর্থনপুষ্ট।
কিন্তু দুপক্ষের লড়াইয়ে টাউনটি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ভুতুড়ে শহরে পরিণত হয়েছে। এর বাসিন্দারা সব পালিয়ে গেছেন, ভবনগুলো ক্ষতবিক্ষত এবং রাস্তার পাশের দোকানগুলো গোলার আঘাতে বিধ্বস্ত ও আগুনে পুড়ে বিবর্ণ হয়ে আছে।
ভুতুরে এই শহরটিতে শুধু ইরাকি বাহিনীর সন্ত্রাস-বিরোধী অভিজাত ইউনিটের বিপুল সংখ্যক সেনা ফাল্লুজায় চূড়ান্ত আক্রমণ চালানোর প্রস্তুতিতে ব্যস্ত রয়েছেন।
২০১৪ সালে আইএসের দখলে যাওয়ার আগে তিন লাখ বাসিন্দার শহর ফাল্লুজা আল কায়েদা জঙ্গিদের দখলে ছিল। সুন্নি অধ্যুষিত এই শহরটি ২০০৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রের দখলদার বাহিনীর বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল।

পড়ে দেখুন

নিউইয়র্কে সুপারমার্কেটে গুলিতে ১০ জন নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে একটি সুপারমার্কেটে গুলিতে অন্তত ১০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন …