শিরোনাম
প্রচ্ছদ / জাতীয় / উৎপত্তিস্থল খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি থেকে ২১ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ৩ মাসের মাথায় বৃহত্তর চট্টগ্রামে আবারো ৪ দশমিক ৭ মাত্রার ভূমিকম্প

উৎপত্তিস্থল খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি থেকে ২১ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ৩ মাসের মাথায় বৃহত্তর চট্টগ্রামে আবারো ৪ দশমিক ৭ মাত্রার ভূমিকম্প

॥ গিরিদর্পণ ডেক্স ॥ ৩ মাসের মাথায় আবারও চট্টগ্রাম অঞ্চলে মাঝারি ধরনের ভূকম্পন অনুভূত হয়েছে। সোমবার ভোর ৬টা ২৮ মিনিটে পরপর ৩ দফায় ভূকম্পনে কেঁপে ওঠে চট্টগ্রাম, ফেনীসহ বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের আশেপাশের জেলাগুলো। রিখটার স্কেলে ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৭।
হঠাৎ ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলে ভোরে গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন অনেকে জেগে উঠেন এবং আতংকে ছোটাছুটি শুরু করেন। তবে ভূমিকম্পের ফলে কোন ক্ষয়ক্ষতি বা হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।
এদিকে রাঙ্গামাটিতেও এই ভূমিকম্পের আঘাতে কেঁপে উঠলে ঘুমিয়ে থাকা লোকজন ঘুম থেকে জেড়ে দৌড়ে বাইরে বেড়িয়ে আসতে দেখা যায় এবং আতংকিত হয়ে পড়ে। তবে কোন ধরণের ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।
অন্যদিকে, খাগড়াছড়িতে ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। সকাল সাড়ে ৬টার দিকে এ ভূমিকম্প অনুভূত হয়। লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমা জানান, ভূমিকম্পের প্রচন্ড ঝাঁকুনিতে তিনিসহ অনেকে ঘর থেকে বেরিয়ে আসেন।
প্রাথমিকভাবে এ ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল খাগড়াছড়ির মানিকছড়িতে বলে জানা গেছে। তবে ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।
চট্টগ্রামে অবস্থিত ভূকম্পন পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল চট্টগ্রামের মানিকছড়ি এলাকা থেকে ২১ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে। এর গভীরতা ছিলো ভূ-পৃষ্ঠ থেকে মাত্র ১০ কিলোমিটার।
এর আগে চলতি বছরের ১৩ এপ্রিল চট্টগ্রামে ৬ দশমিক ৯ মাত্রার ভূকম্পন অনুভূত হয়। এতে অন্তত ১০টি বহুতল ভবনে ফাটল ধরে এবং হেলে পড়ে। আতংকে হুড়োহুড়ি করে বিভিন্ন ভবন থেকে নামতে গিয়ে সেদিন অন্তত অর্ধশত নারী-পুরুষ আহত হয়েছিল।
চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ ফায়ার সার্ভিসের বিভাগীয় অফিসের ডিউটি অফিসার প্রহ্লাদ সিংহ জানান, মাঝারি আকারের ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। তবে কোথাও হতে এখনো কোন ধরনের ক্ষয়ক্ষতি খবর আসেনি।

পড়ে দেখুন

পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন ও দোয়া মোনাজাত

॥ ডেস্ক রিপোর্ট ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করে দোয়া ও …