শিরোনাম
প্রচ্ছদ / রাঙ্গামাটি / পাখিদের নিরাপদ আশ্রয়ে ব্যতিক্রমী ‘টুনির বাড়ী’

পাখিদের নিরাপদ আশ্রয়ে ব্যতিক্রমী ‘টুনির বাড়ী’

॥ আহমদ নবী, কাপ্তাই ॥ অবাধে বনাঞ্চল উজাড় হওয়ায় পার্বত্য এলাকায় বিভিন্ন ধরনের পাখি যেখানে সেখানে গাছের ডালে বাসা বাঁধতে পারছেনা। আবার বাড়ী ঘরের আঙ্গিনায় গাছ গাছালিতে পাখিরা বাসা বাঁধলেও দুরন্ত কিশোর সহ এক শ্রেণীর মানুষের অত্যাচার ও নানা কারনে সেসব পাখির বাসা টিকিয়ে রাখা সম্ভব হচ্ছেনা। ফলে এলাকার বিভিন্ন প্রজাতির পাখিরা নিরাপদে বংশ বিস্তার করতে পারছেনা। যে কারনে পার্বত্য এলাকা থেকে নানা জাতের পক্ষীকুল হ্রাস পাচ্ছে।
এসব পাখিদের নিরাপদ বংশবৃদ্ধি ও নির্বিঘেœ বিচরনের লক্ষ্যে কাপ্তাইয়ের ওয়া¹া বিজিবি জোন কর্তৃপক্ষ নিয়েছে এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। জোনের ১৯ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ কর্তৃক পরিচালিত ”জুম রেস্তোরায়” গাছের মগডালে (আগায়) পাখিদের জন্য আধুনিক একটি দোতালা ”টুনির বাড়ী” তৈরি করা হয়েছে। এ বাড়ীতে প্রবেশের দরজা এবং পাখিদের বসবাসের উপযোগী করে করা হয়েছে। আপাতত একসাথে ৪ জোড়া পাখি এ বাড়ীতে নির্বিঘেœ ডিম দেওয়া ও বাচ্ছা ফুটানোর কাজ করতে পারবে।
ভবিষ্যতে আরো অধিক পাখি বসবাসের জন্য এ ধরনের একাধিক বাড়ী নির্মানের পরিকল্পনা রয়েছে বলে বিজিবি অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল সোহেল উদ্দিন পাঠান জানান। বাড়ীটি বানানোর পর হতে বিভিন্ন জাতের পাখিদের আনাগোনা বৃদ্ধি পেয়েছে এ বাড়ীতে। এ পর্যন্ত শতাধিক বিভিন্ন জাতের পাখি নির্বিঘেœ ডিম পাড়া থেকে শুরু করে বাচ্ছা ফুটিয়েছে। পাখিদের জন্য এ ধরনের আধুনিক বাড়ী সম্ভবত পার্বত্য এলাকায় এটিই প্রথম।

পড়ে দেখুন

রাঙ্গামাটিতে কর্মরত সাংবাদিকদের নিয়ে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের প্রশিক্ষণ কর্মশালা : সারা দেশের সাংবাদিকদের জন্য একটা ডাটাবেজ তৈরি হচ্ছে–প্রেস কাউন্সিল চেয়ারম্যান

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ সারা দেশের সাংবাদিকদের জন্য একটা ডাটাবেজ তৈরি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন …