শিরোনাম
প্রচ্ছদ / জাতীয় / ‘বাঙালির সব অর্জন আওয়ামী লীগের হাত ধরেই এসেছে’

‘বাঙালির সব অর্জন আওয়ামী লীগের হাত ধরেই এসেছে’

বাঙালির যা কিছু অর্জন, সবই আওয়ামী লীগের হাত ধরে হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
তিনি বলেছেন, ‘বাঙালির স্বাধীনতা অস্তমিত হয়েছিলো ২৩ জুন পালাশির আম্রকাননে। ১৯৪৯ সালের সেই ২৩ জুন আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত হয়। সেই আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের স্বাধীনতা এনে দেয়’।
‘বাংলাদেশের ইতিহাস যদি দেখি, বাঙালির যা কিছু অর্জন, সবই আওয়ামী লীগের হাত ধরে হয়েছে’।
বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) আওয়ামী লীগের ৬৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে জাতীয় সংসদে দেওয়া বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।
আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা প্রতিষ্ঠার পর থেকে দলের সুদীর্ঘ ইতিহাস তুলে ধরে বলেন, ‘বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, ছেষট্টির ৬ দফা আন্দোলন, ঊনসত্তরের গণঅভ্যূত্থান, সত্তরের নির্বাচনে বিজয়, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধসহ এই ভূখণ্ডে যা কিছু অর্জন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে হয়েছে। ১৯৫৬ সালে আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় ছিলো, তখন পাকিস্তানের শাসনতন্ত্রও তৈরি করেছিলো’।
‘বাংলাদেশের নামও বঙ্গবন্ধু দিয়েছিলেন। জাতীয় সংগীত কি হবে- সেটাও বঙ্গবন্ধু বলে দিয়েছিলেন। জাতীয় পতাকার রং লাল-সবুজ, সেটাও বঙ্গবন্ধু ঠিক করে দিয়েছিলেন। কিভাবে মুক্তিযুদ্ধ হবে, কোথায় প্রশিক্ষণ হবে সব ব্যবস্থাই বঙ্গবন্ধু করেছিলেন। স্বাধীনতার পর ৯ মাসের মধ্যে তিনি সংবিধান দিয়েছিলেন। মাত্র সাড়ে তিন বছরে যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠন করেছিলেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সদস্যপদ লাভও বঙ্গবন্ধুর প্রচেষ্টাতেই হয়েছিলো। জাতিসংঘ, ওআইসি, কমনওয়েলথের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন, বাংলাদেশর স্থলসীমানা আইন, সমুদ্রসীমা আইন বঙ্গবন্ধুই করে গিয়েছেন’।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু দেশ পুনর্গঠন করে জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছিলেন। তিনি যে উদ্যোগ দিয়েছিলেন, তিনি থাকলে বহু আগেই বাংলাদেশ উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হতো’।
তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় এসেছে তখনই এ দেশের মানুষ কিছু পেয়েছেন। আমরা ক্ষমতায় থাকি আর বিরোধী দলে থাকি, জনগণের জন্য কাজ করি’।
‘আইয়ুব, ইয়াহিয়া, জিয়া, এরশাদের সামরিক সরকার এবং একনায়কের স্ত্রী যখন ক্ষমতায় ছিলেন, প্রত্যেকটি গণবিরোধী সরকারের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ আন্দোলন করেছে। এর জন্য আওয়ামী লীগের ওপর বার বার আঘাত এসেছে। তারপরও বাংলাদেশের মানুষের জন্য আওয়ামী লীগ বিজয় ছিনিয়ে এনেছে’।

২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পরাজয়ের প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা একটি ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছিলাম। আমরা বিদেশের কাছে গ্যাস বিক্রি করতে চাইনি। যেহেতু খালেদা জিয়া গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়েছিলেন আর আমি দেশের গ্যাস বিদেশের কাছে বিক্রি করতে রাজি হইনি, তাই আমরা ক্ষমতায় আসতে পারলাম না। ২০০৮ সালের নির্বাচনে এদেশের মানুষ আমাদেরকে ভোট দিয়ে ক্ষমতায় বসান’।
‘আমরা দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। আজ বাংলাদেশ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। পৃথিবীর সকল দেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি করতে পেরেছি। মানুষ এখন স্বপ্ন দেখেন উন্নত জীবনের। দেশ আজ আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। আজ বাংলাদেশকে কারো কাছে হাত পাততে হয় না। আর এটা সম্ভব হয়েছে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে বলেই’।
দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য দেশবাসীর সহযোগিতা চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘এদেশের মানুষ উন্নত জীবন পাবেন- সেটাই আমাদের লক্ষ্য। আমরা কি পেলাম, কি পেলাম না- সে চিন্তা করি না। দেশবাসীর সহযোগিতা নিয়ে দেশকে যাতে এগিয়ে নিতে পারি, আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে এই আমার কামনা’।

পড়ে দেখুন

শেষ মুহূর্তে ভারত সফর থেকে ‘বাদ’ পড়লেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা: শেষ মুহূর্তে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় ভারত সফর থেকে বাদ পড়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ …