শিরোনাম
প্রচ্ছদ / খাগড়াছড়ি / খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় প্রশাসনের উদ্যোগে জলপাহাড় অডিটোরিয়ামে গণশুনানি

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় প্রশাসনের উদ্যোগে জলপাহাড় অডিটোরিয়ামে গণশুনানি

॥ মাটিরাঙ্গা সংবাদদাতা ॥ সরকারি বেতন নিলে জনগণকে সেবা দিতে হবে। এর ব্যাত্যয় ঘটলে সরকারি কর্মকর্তাদের চাকুরী ছেড়ে দেওয়ার পরামর্শ দিলেন দুদকের কমিশনার এ এফ এম আমিনুল ইসলাম। ঘুষ নিলেই দুর্নীতি হয় না উল্লেখ করে তিনি বলেন, যথাযথভাবে অফিস না করলেও দুর্নীতি হয়। একটি সোনার বাংলা বিনির্মানে শপথ নেয়ার সময় এসেছে জানিয়ে বলেন, বিশ্বের মানচিত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে বাংলাদেশ দিয়ে গেছেন সে বাংলাদেশকে আমরা গুটিকয়েক দুর্নীতিগ্রস্থ ব্যক্তির কাছে ছেড়ে দিতে পারি না।
সোমবার (২৫জুলাই) দুপুরে সরকারি সেবা সুবিধাদি প্রাপ্তির ক্ষেত্রে উদ্বুদ্ধ সমস্যাদি শ্রবন, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহীতামুলক প্রশাসনিক ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জলপাহাড় অডিটোরিয়ামে গণশুনানি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
এর আগে পদস্থ সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা অংশ গ্রহণে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদ মাঠ থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান এর সভাপতিত্বে গণশুনানী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, দুদক‘র চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক মো. আব্দুল আজিজ ভূইয়া। খাগড়াছড়ি জেলার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক এটিএম কাউছার হোসেন, খাগড়াছড়ির ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মো. সালাহ উদ্দিন, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য নির্মলেন্দু চৌধুরী, সিভিল সার্জন ডা. নিশিথ নন্দী মজুমদার ও দুদক‘র রাঙ্গামাটি সমন্বিত কার্যালয়ের উপপরিচালক মে. সফিকুর রহমান ভূইয়া প্রমূখ গণশুনানী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।
ঘুষ ও দুর্নীতি প্রতিরোধে জনগণকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন জনগণ যদি মনে করে আমি দুর্নীতি করবো না এবং অন্যকেও দুর্নীতি করতে দিবো না। তবেই যে কোন সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তা দুর্নীতি করতে পারবে না। জনগণের স্বদিচ্ছায় দুর্নীতির মুলোৎপাটন সম্ভব বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
গণশুনানি চলাকালে সেবাপ্রার্থীরা সরাসরি বিভিন্ন সরকারি অফিসে চলমান অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়ে দুদক কমিশনারের কাছে তুলে ধরেন। এতে স্বাস্থ্য ও বিদ্যুৎ খাতের চরম অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার বিষয়টি শুনে দুদক কমিশনার এএফএম আমিনুল ইসলাম। এ সময় দুদকের কমিশনার অভিযোগগুলো আমলে নিয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।
মাটিরাঙ্গা উপজেলা চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার ভূমি রায়হানুল হারুন, মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ সাহাদাত হোসেন টিটো, মাটিরাঙ্গার পৌরসভার মেয়র মো. শামছুল হক, প্যানেল মেয়র মো. আলাউদ্দিন লিটন, খাগড়াছড়ি জেলা দুর্নীতি পতিরোধ কমিটির সভাপতি সুদর্শন দত্ত ও সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. জসিম উদ্দিন মজুমদার প্রমূখ গণশুনানী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে দুদকের কমিশনার এএফএম আমিনুল ইসলাম মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ‘অর্জুন’ গাছের চারা রোপণ করেন।

পড়ে দেখুন

খাগড়াছড়িতে কালবৈশাখী ঝড়ে বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি, যোগাযোগ ছিলো বন্ধ, বিদ্যুৎ ছিলো না ৫ ঘন্টা

॥ খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ॥ খাগড়াছড়িতে মাত্র এক মিনিটের কালবৈশাখী ঝড়। তাতেই বিভিন্ন স্থানে বৈদ্যুতিক পোল …