শিরোনাম
প্রচ্ছদ / চট্টগ্রাম / দুই মন্ত্রী কথা রাখলেন,আনোয়ারা উপকূল রক্ষায় ২৯১ কোটি টাকা বরাদ্ধ

দুই মন্ত্রী কথা রাখলেন,আনোয়ারা উপকূল রক্ষায় ২৯১ কোটি টাকা বরাদ্ধ

আনোয়ারার সর্বত্রই আনন্দের বন্যা বইছে। উপকূলীয় এলাকা রক্ষার জন্য সরকার ২৯১ কোটি বরাদ্ধ দিয়েছে। চলতি একনেক বৈঠকে এইটি পাশ হয়। এই বিশাল বরাদ্ধে এই জনপদের প্রতিনিধি মন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরীর অসামন্য অবদান  রয়েছে। এই বছর রোঁয়ানো আঘাত হানে আনোয়ারার উপকূল অঞ্চলে। রোঁয়ানোর আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় গোটা উপকূলীয় এলাকা।রোঁয়ানো আঘাতের পর পরই  মন্ত্রী উপকূলী এলাকা পরিদর্শন করতে যান ও সেইসঙ্গে তিনি নিয়ে যান পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদকেও। উপকূলীয় এলাকার দূরাবস্হা দুই মন্ত্রী নিজ চোখ দেখেন।তখন সমবেত দলীয় নেতাকর্মী ও বাধঁ ভাঙ্গা ঘর- বাড়ী হারা অসহায় হতাশাগ্রস্হ মানুষের সামনে সাহস যুগিয়ে দুইমন্ত্রী আবেগঘন বক্তব্যও দেন। তখন সাইফুজ্জামান চৌধুরীর সামনে পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম  মাহমুদ  উপকূলবাসীকে রক্ষার জন্য বাঁধ নির্মাণের আশ্বাস দিয়েছিল। সেই আশ্বাসের ফল মিলল এবার একনেক বৈঠকে। দুইমন্ত্রী কথা রাখলেন। দ্রুত এই খবর ছড়িয়ে পড়ে আনোয়ারার সর্বত্রই ।তখন উপকূলীয় এলাকার মানুষের চোখে মুখে হাসি ফুটে ।গুনগান গাইতে  থাকে ভুমি প্রতিমন্ত্রীর । সেই সঙ্গে যাদের সহানুভুতি ও সহযোগিতার কথা  কৃতজ্ঞতাভরে স্মরণ করছে তারা হলেন উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী,মন্ত্রীর এপিএস রিদুয়ানুল করিম চৌধুরী সায়েম ও নয়া চেয়ারম্যান জানে আলম। প্রসংগত ৯১ সালে ২৯ এপ্রিল প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড়ে এই জনপদ লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছিল। তখন ক্ষমতায় ছিল বিএনপি সরকার। তখন এখানকার পার্লামেণ্ট মেম্বার ছিলেন মরহুম জননেতা আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু। তৎ সময়ের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু কে  দায়িত্ব দিয়েছিলেন কুতুবদিয়ায়। তিনি তখন কুতুবদিয়ায় যাননি দিন রাত আনোয়ারায়  ছিলেন। তখন থেকেই এই নেতা আনোয়ারাবাসীর হুদয়ে স্হান করে নিয়েছিলেন। তিনি বিরোধী দলে থেকেও শেখ হাসিনাকে নিয়ে এনেছিলেন উপদ্রুত অঞ্চল রায়পুরে। এই প্রতিনিধি তখন টকবক যুবক ও সামাজিক কর্মকান্ডে নিবেদিত। নেতার স্নেহের কারণে পাশে পাশে থেকে দেখেছিলেন এলাকার মানুষের প্রতি তারঁ ভালবাসার টানের গভীরতা। নিজ তহবিল থেকে প্রতি ঘরে নগদ অর্থদান এখানকার মানুষের কাছে এখনো সবচেয়ে স্মৃতিময় ঘটনা। শহর থেকে সুইপার এনে পচা দূর্গন্ধ পশু পাখি ও লাশ সরানোর কাজের নেতূত্ব ছিল মানবতার অপূর্ব দৃষ্ঠান্ত ও যারা দেখেছে তাদের কাছে চির স্মরণীয় ঘটনা। বন্দরটিলার নৌবাহিনী ট্র্যাজটীর পর লাশ বহন করে মহিউদ্দিন চৌধুরী যেমন চট্টগ্রামবাসীর হুদয় আর্কষন করেছিল তেমনি খালেদা জিয়ার জনবিচ্ছিন্ন হবার ফাঁদে পা না দিয়ে রাজনৈতিক দূরদর্শীতা দেখিয়ে বিপদগ্রস্হ মানুষের পাশে থেকে দেশবাসীর দৃষ্ঠি আর্কষন করেছিলেন আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু।

পড়ে দেখুন

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভায় সম্মানিত সভাপতি আলহাজ¦ আবুল কালাম আজাদ এর …