শিরোনাম
প্রচ্ছদ / চট্টগ্রাম / চট্টগ্রাম নগরীতে মাকে দখেতে ভক্তরে ঢল

চট্টগ্রাম নগরীতে মাকে দখেতে ভক্তরে ঢল

জঙ্গবিাদরে হংিস্র থাবার নীচে দশে।  বেেঘারে প্রাণ হারাচ্ছে নরিীহ মানব সন্তানরা।  আসুরকি শক্তরি উত্থানে আজ অসহায় জাত।ি  কে তাদরে রক্ষা করবে ? কে বনিাশ করবে সইে অসুরকে ? আছনে শক্তরিূপণিী মা র্দুগা।  অসুররে বনিাশ ঘটেিয় মা ধরাধামে নেিয় আসছনে শান্তরি বারতা।
চট্টগ্রাম নগরীর ঐতহ্যিবাহী হাজারী লইেন পূজামণ্ডপে এবার মঞ্চায়তি হচ্ছে ‘শুভ শক্তরি ঐক্য, অশুভ শক্তরি বনিাশ’ র্শীষক এই প্রতীকী চত্রি।
হাজারী লইেন পূজা উদযাপন পরষিদরে সভাপতি ও কাউন্সলির জহরলাল হাজারী বলনে, জঙ্গবিাদরে থাবায় যখন বর্পিযস্ত দশে তখন শুভ চন্তিার মানুষরে ঐক্য খুবই জরুরী।  শুভবোধই পারবে অন্ধকাররে বরিুদ্ধে আলোকে এগেিয় নতি।ে  ঠকি সভোবইে অশুভ শক্তরি বরিুদ্ধে মা র্দুগা যখন লড়াইয়ে নামবনে তখন দবেতারা এসে একে একে তার হাতে তুলে দবেনে অস্ত্র।  মা র্দুগা বনিাশ করবনে জঙ্গি নামধারী অসুরদরে।  এটাই আমাদরে এবাররে থমি।
১৫ লক্ষ টাকা বাজটেরে এই পূজায় দড়ে লক্ষ টাকা দেিয় প্রতমিা নর্মিাণ করছেনে মৃৎশল্পিী কাজল দ।ে   আর আলোকসজ্জায় আছনে আশীষ মহাজন।
জহরলাল হাজারী জানান, এবার মাটি দেিয় র্দুগা প্রতমিা বানানো হয়ন।ি  হালকা সোলার উপর বানানো হয়েেছ প্রতমিাসহ পুরো মঞ্চ।
এদেিক চরিন্তন র্পূজার্অচনার পাশাপাশি সাম্প্রতকি সময়ে জনপ্রয়ি হওয়া ‘থমিরে’ মাধ্যমে সমাজরে নানা অসঙ্গতি মাটরি প্রতমিা এবং আলোকায়নরে মাধ্যমে তুলে ধরার প্রয়াস চলছে বন্দরনগরীর বভিন্নি  পূজামণ্ডপ।ে  র্বণলি আলোকসজ্জা, ডেেকারশেন আর ঢোলরে শব্দে এককেটি মণ্ডপ যনে হয়ে উঠেেছ এককেটি উৎসবরে মলিনায়তন।
চট্টগ্রাম জলো পূজা উদযাপন পরষিদরে সভাপতি শ্যামল কান্তি পালতি বাংলানউিজকে বলনে, থমি পূজা এবার গ্রামগেঞ্জওে ছড়েিয় পড়ছে।ে  মূলত মায়রে জাগ্রত র্মূতি ভক্তরে সামনে তুলে ধরতইে আয়োজন করা হয় থমি পূজা।  যখোনে থমি পূজা হচ্ছে সখোনে লোকসমাগম অতীতে আমরা বিেশ দখেছে।ি  এবারও সরেকমই হচ্ছ।ে  তবে অনকে মণ্ডপে মায়রে মঞ্চ, প্রতমিার সৌর্ন্দয এবং লাইটংি-ডেেকারশেনও ভক্তদরে টানছ।ে
নগরীর টরেবিাজার বাই লইেনে এবাররে পূজার থমি হচ্ছে ‘মনুষ্যত্ব’।  বশ্বি চরাচরে যখন মানুষরে মধ্যে অমানবকি, নর্মিম চতেনা জাগ্রত হয়, বসবাসরে অনুপযোগী হয়ে পড়ে পৃথবিী, তখন অসহায়-বপিন্ন মানুষরে কান্না, ভক্ত-ঋষরি আবাহনে কি বসে থাকতে পারনে মা ! মা মমতাময়ী আবার মা শক্তরিূপণিী–সাগরপৃষ্ঠে এই প্রতপিাদ্য ফুটেিয় তুলেেছ টরেবিাজার বাই লইেন পূজা উদযাপন পরষিদ।
নগরীর রাজাপুর লইেনে মা র্দুগার মঞ্চ বানানো হয়েেছ গ্রনি সটিরি আদল।ে  চট্টগ্রামরে ময়ের আ জ ম নাছরি উদ্দনিরে বহুল আলোচতি ‘গ্রনি সটি,ি ক্লনি সটি’ি কনসপ্টেরে আদলে মানুষকে সচতেন করতে এই উদ্যোগ বলে জানয়িছেনে সংগঠকরা।
নগরীর কুসুমকুমারী সিিট করপোরশেন উচ্চ বদ্যিালয়ে চট্টগ্রাম সিিট করপোরশেন, র্পূব গোসাইলডাঙ্গা একতা গোষ্ঠী, দক্ষণি নালাপাড়া, উত্তর কাট্টলী, চান্দগাঁও, ঘাটফরহাদবগেসহ আরও বভিন্নি এলাকায় বভিন্নি প্রতপিাদ্য তুলে ধরে পূজার আয়োজন করা হয়ছে।ে
ঘরোয়া পূজা ছাড়া নগরীতে এবার ২৩১ টি মণ্ডপে র্দুগাপূজা হচ্ছ।ে  আর জলোয় এক হাজার ৬৯টি মণ্ডপে র্দুগাপূজার আয়োজন করা হয়ছে।ে
শনবিার সকালে নগরী ও জলোর মণ্ডপগুলোতে মহাসপ্তমী পূজা অনুষ্ঠতি হয়ছে।ে  মধ্যাহ্নে ভোগরাগরে পর বকিলে থেেক বভিন্নি মণ্ডপে র্দশর্নাথীরা আসতে শুরু কর।ে  তবে সন্ধ্যার পর থেেক র্দশর্নাথীর সংখ্যা বাড়তে শুরু করছে।ে
নগর পুলশিরে অতরিক্তি কমশিনার (অপরাধ ও অভযিান) দবেদাস ভট্টার্চায বাংলানউিজকে বলনে, সকল র্দশর্নাথী যাতে শান্তপর্ূিণভাব,ে নর্বিঘ্েিন পূজামণ্ডপ ঘুরে যেেত পারনে সজেন্য সব ধরনরে নরিাপত্তার প্রস্তুতি নয়ো হয়ছে।ে  নগরীতে আমাদরে প্রায় দুই হাজার পুলশি মোতায়নে আছ।ে

পড়ে দেখুন

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভায় সম্মানিত সভাপতি আলহাজ¦ আবুল কালাম আজাদ এর …