শিরোনাম
প্রচ্ছদ / তৃণমূল / শীতের আগমনে কাপ্তাইয়ে পিকনিক স্পটগুলো সেজেছে নতুন সাঁজে

শীতের আগমনে কাপ্তাইয়ে পিকনিক স্পটগুলো সেজেছে নতুন সাঁজে

শীতের আগমনে কাপ্তাইয়ে পিকনিক
স্পটগুলো সেজেছে নতুন সাঁজে

শীতের আগমনে পর্যটন মৌসুমের কথা বিবেচনা করে পাহাড় ঘেরা, কর্ণফুলী নদী, হ্রদ আর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর কাপ্তাইয়ের পিকনিক স্পটগুলো আরো আকর্ষনীয় সাজে সেজেছে। প্রতি বছরেই নতুনরূপে সাজানো হয় এগুলোকে।
চট্টগ্রাম থেকে কাপ্তাই আসার পথে প্রথমে রয়েছে ওয়া¹ায় বিজিবি পরিচালিত কর্ণফুলী নদীর তীরে পাহাড়ের পাদদেশে ”ঝুম রেস্তোরা”। এখানে রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করার মত জায়গা, বিনোদনের নানা আয়োজন ও একটি খাবার রেষ্টুরন্ট। এরপর রয়েছে বন বিভাগ পরিচালিত ”প্রশান্তি” পিকনিক স্পট। পিডিবির কার্গো পারাপার প্রণালী ও বিদ্যুৎ উৎপাদন ইউনিটের মাঝখানে রয়েছে রিভারউি পিকনিক স্পট। বাংলাদেশ নৌ বাহিনিীর শহীদ মোয়াজ্জেম ঘাঁটি কর্তৃপক্ষ কর্তৃক পরিচালিত মনোরম একটি পিকনিক স্পট আছে কাপ্তাই লেকের পাড়ে। পিকনিক স্পটটি পর্যটন মৌসুম ছাড়াও সারা বছর ধরে আকর্ষনীয় করে রাখতে ইতিমধ্যে বিনোদন কেন্দ্রের নানা সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়েছে। কাপ্তাই থেকে উত্তরে প্রায় ৩ কিলোমিটার দুরে এ স্পটটি অবস্থিত। এর পাশে রয়েছে সেনা বাহিনী পরিচালিত জীবতলী পিকনিক স্পট। এসব পিকনিক স্পটগুলোতে বিভিন্ন বিনোদনের ব্যবস্থা সহ রয়েছে বিশ্রাম কক্ষ। লেকের পাড় ঘেষে একটি রাস্তা রয়েছে যা দিয়ে স্বল্প সময়ে রাঙ্গামাটি যেতে যেতে মনোরম পাহাড়ী দৃশ্য ও লেকের সের্ন্দয্য উপভোগ করা যায়য়।
কাপ্তাই থেকে যাওয়ার পথে দু-ধারে পহাড়ী আকাঁবাকাঁ পথ বেয়ে যেতে যেতে অপুর্ব প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখে পর্যটক মাত্রই বিমোহিত না হয়ে পারবেনা। নৌ বাহিনী পিকনিক স্পট থেকে স্পীড বোট নিয়ে লেকে বেড়ানোর ব্যস্থাও রয়েছে। যেসব পর্যটক বেড়াতে যাবেন তারা উপভোগ করবেন এক অনিন্দ্য সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য। কারন এ স্পটের চতুর্দিকে কাপ্তাই হ্রদের বিশালতা ও স্বচ্ছ পানি, নৌ প্রশিক্ষন ঘাঁটির একাংশ, সাম্পান অথবা ইজ্ঞিন চালিত বোটে যাওয়ার সময় হালকা হিমেল হাওয়ার দোলা আর উপজাতীয় তরুন-তরুনীদের বিভিন্ন কৃষিপন্য আনা নেওয়ার দৃশ্য দেখে যে কোন পর্যটকই মুগ্ধ হয়ে পড়বে। এ স্পটের পাশেই সুউচ্চ পাহাড়ের চুড়ায় আরো একটি বিনোদন স্পট রয়েছে। এখানে বসে অনেক দুরের প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করা যায়। এখানে নানা গাছ গাছালী আর বসার সুব্যবস্থা রয়েছে। ঢাকা থেকে বেড়াতে আসা দম্পতি জাহিদুল হাসান ও ফারজানা আহমেদ পলি বলেন, কাপ্তাইয়ের পিকনিক স্পটগুলো আমাদের মুগ্ধ করেছে, তাই আমরা প্রতি বছরই এখানে আসি। ঢাকা ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভারসিটি থেকে আসা ছাত্রী নিশুও একই কথা বলেন।
পর্যটকদের কেনা কাটার সুবিধার্থে কাপ্তাই পিকনিক স্পটে ও প্তই জেটিঘাটে পার্বত্য রাঙামাটি জেলায় উৎপাদিত বিভিন্ন প্রকার তাঁতের জামা কাপড় সহ দেশের অন্যান্য প্রান্তের বিশেষ করে রাজশাহী, টাঙ্গাইল, দিনাজপুরের তৈরি সুতার বস্ত্রাদি সুলভ মুল্যে পাওয়া যায়। পর্যটকদের চাহিদা অনুযায়ী এসব পন্য সামগ্রী বিক্রির জন্য ”গিফট কর্ণার” নামক একটি বিক্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। মোটকথা সবকিছু মিলিয়ে উপভোগ করার মদ জায়গা কাপ্তাইয়ে রয়েছে।

পড়ে দেখুন

অধিক শস্য ফলনের জন্য বিদ্যুৎ ব্যবহারে সবাইকে সাশ্রয়ী হবার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

॥ ডেস্ক রিপোর্ট ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হবার পাশাপাশি সকলকে সঞ্চয় করার …