শিরোনাম
প্রচ্ছদ / বান্দরবান / মাতৃভাষার বই পেল বান্দরবানের চাকমা ও মারমা শিক্ষার্থীরা

মাতৃভাষার বই পেল বান্দরবানের চাকমা ও মারমা শিক্ষার্থীরা

মাতৃভাষার বই পেল বান্দরবানের চাকমা ও মারমা শিক্ষার্থীরা
বান্দরবানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ক্ষুদ্র নৃ- গোষ্ঠীর ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য মাতৃভাষায় প্রণীত পাঠ্য পুস্তক বিতরণ করা হয়েছে। রবিবার (১৫ জানুয়ারী) সকাল ১০টায় বান্দরবান বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা পদিষদের আয়োজনে পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা এর সভাপতিত্বে বই বিতরণ অনুষ্ঠানে  প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্রগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।
অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক, অতিরিক্ত সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার অর্নিবাণ চাকমা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) হারুন অর রশিদ, পার্বত্য জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুল আবছার, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আনন্দ কিশোর সাহা, সহকারি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রিটন কুমার বড়–য়া, জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আব্দুর রহিম চৌধুরী, পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য ক্যা সা প্রু, সদস্য কাঞ্চন জয় তঞ্চঙ্গ্যা, সদস্য লক্ষীপদ দাস,সদস্য সিয়ং ইয়ং ম্রো, প্রেসক্লাবের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বাচ্চু সহ প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্টানের কর্মকর্তা এবং ছাত্র-ছাত্রীসহ অভিভাবকরা।
এসময় প্রধান অতিথি পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেন“ এই প্রথমবারের মত নৃ-গোষ্ঠীদের ভাষায় বই প্রকাশ করায় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানায়। নৃ-গোষ্ঠীদের মাতৃভাষায় বই প্রণয়ন করার কারনে পার্বত্য অঞ্চলে শিক্ষার্থীর হার বৃদ্ধি পাবে। এর ফলে পার্বত্য জেলায় ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীর হার কমে আসবে। যদি ও বা এবারের মত ৫টি ভাষায় বই প্রকাশ করা হয়েছে। এখনো পর্যন্ত যে সমস্ত নৃ-গোষ্ঠীর নিজেদের ভাষা সৃষ্টি করা হয়নি  তাদের ভাষা সৃষ্টি করা হলে তাদের ভাষাই ও বই প্রকাশ করা হবে। তিনি শিক্ষকদের উদ্দ্যোশে বলেন, ছাত্র-ছাত্রীদের ব্যবহারিক ধারণার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বাড়াতে হবে। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে সরকারি ভাবে প্রথমবারের মত প্রকাশিত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির ভাষায় প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মারমা, চাকমা, ত্রিপুরা এই তিনটি ভাষার নতুন বই বিতরণ করেন প্রধান অতিথি।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের তথ্যমতে, এবারে বান্দরবান জেলায় ১হাজার ১শত ২২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মারমা ভাষায় ৭শত ৫৯টি টিচার গাইড ও ৫টি এক্সারাইজ বুক,২০টি জেলা বাফার সেম্পল এবং চাকমা ভাষায় ৭শত ৫৯টি টিচার গাইড ও ৫টি এক্সারাইজ বুক ও ১০টি জেলা বাফার সেম্পল বই বিতরণ করা হলে ও ত্রিপুরা, গাড়ো ও সার্দ্রি ভাষায় কোন বই বিতরণ করা হয়নি। বান্দরবান জেলার জন্য ৫ হাজার ১শত ২১জন ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির শিক্ষার্থীদের জন্য বইয়ের চাহিদা দেয়া হলে ও  ১হাজার ৫শত ৫৮টি বই  এ পর্যন্ত পাওয়া গেছে।

পড়ে দেখুন

অধিক শস্য ফলনের জন্য বিদ্যুৎ ব্যবহারে সবাইকে সাশ্রয়ী হবার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

॥ ডেস্ক রিপোর্ট ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হবার পাশাপাশি সকলকে সঞ্চয় করার …