শিরোনাম
প্রচ্ছদ / জাতীয় / ৭২ ঘন্টার মধ্যে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করা নাহলে অনির্দিষ্টকালের জন্য অবরোধের ডাক, রাঙ্গামাটি-খাগড়াছড়ি মহালছড়ি সড়কে বেতছড়ি এলাকায় ২টি মালবাহী ট্রাকে অগ্নিসংযোগ

৭২ ঘন্টার মধ্যে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করা নাহলে অনির্দিষ্টকালের জন্য অবরোধের ডাক, রাঙ্গামাটি-খাগড়াছড়ি মহালছড়ি সড়কে বেতছড়ি এলাকায় ২টি মালবাহী ট্রাকে অগ্নিসংযোগ

৭২ ঘন্টার মধ্যে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করা নাহলে অনির্দিষ্টকালের জন্য অবরোধের ডাক,
রাঙ্গামাটি-খাগড়াছড়ি মহালছড়ি সড়কে বেতছড়ি এলাকায় ২টি মালবাহী ট্রাকে অগ্নিসংযোগ

রাঙ্গামাটি খাগড়াছড়ি মহালছড়ি সড়কের নানিয়ারচর উপজেলার বেতছড়ি এলাকায় চাঁদার দাবীতে মালভর্তি ২টি ট্রাকে আগুন লাগিয়ে ভস্মিভূত করেছে সন্ত্রাসীরা। গতকাল সোমবার ভোর ৫ টার দিকে উপজেলার ১৮ মাইল-কাঠালতলী এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। এসময় পর্যটকবাহী কয়েকটি গাড়ি থামিয়ে তাদের কাছ থেকে মোবাইল ও টাকা পয়সা ছিনতাই করে নেয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে। এদিকে মালবাহী ট্রাকে আগুন দেয়ার প্রতিবাদে রাঙ্গামাটি শহরে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে শ্রমিক সংগঠন গুলো। শহরের দোয়েল চত্ত্বর সহ বনরূপায় বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ করছেন বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা।
রাঙ্গামাটির অতিরিক্ত পুলিশ শহীদুল্লাহ জানান, গতকাল সোমবার ভোর ৫টার দিকে দুটি ট্রাক মালামাল নিয়ে চট্টগ্রাম থেকে রাঙ্গামাটি সড়ক হয়ে মহালছড়ি উদ্দেশ্য যাচ্ছিল। এসময় রাঙ্গামাটির নানিয়ারচর উপজেলার বেতছড়ির মাঝামাঝি কাঙগেলছড়ি এলাকায় পৌছলে একদল দুর্বৃত্ত মালবাহী একটি ট্রাকে অগ্নিসংযোগ করে দিলে তা সম্পুর্ণ পুড়ে যায়। তবে অপর ট্রাকে দুর্বৃত্তরা অগ্নিসংযোগ করলেও সেটি স্থানীয় লোকজন ও মালবাহী ট্রাকের লোকজন আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। ঘটনার পর পর দুর্বৃত্তদের ধরতে পুলিশ ও সেনাবাহিনী  এলাকায়  যৌথ অভিযান চালাচ্ছে।
এদিকে মালবাহী ট্রাকে আগুন দেয়ার প্রতিবাদে রাঙ্গামাটি শহরে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে শ্রমিক সংগঠন গুলো। শহরের দোয়েল চত্ত্বর সহ বনরূপায় বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ করছেন বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা। রাঙ্গামাটি জেলা বাস মালিক সমিতির সভাপতি মোঃ সেলিম, রাঙ্গামাটি ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সেকান্দর হোসেন, অটোরিক্সা চালক কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক রোমান ও ট্রাক চালক শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা রুহুল আমিন এর নেতৃত্বে শত শত শ্রমিক এই বিক্ষোভ মিছিলে অংশ গ্রহণ করেন। বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃবৃন্দ চাঁদাবাজী বন্ধ সহ বিভিন্ন সময় ড্রাইভার হত্যার বিচার দাবী করেন।
পরে মালিক শ্রমিক নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠকে বসেন রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান। বৈঠকে জেলা প্রশাসক রাঙ্গামাটি শহরের চলা অবরোধ প্রত্যাহারের অনুরোধ জানান। জেলা প্রশাসকের অনুরোধের প্রেক্ষিতে শ্রমিক নেতৃবৃন্দ ৭২ ঘন্টার মধ্যে হামলাকালীদের গ্রেফতার করা না হলে লাগাতার হরতাল অবরোধের ডাক দেয় নেতৃবৃন্দ।
গাড়ী চালকরা মহালছড়ি বাজারের মালামাল পরিবহনের গাড়ী জানালে তাদের কাছে চাঁদা দাবী করা হয়। ড্রাইভাররা চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় সাথে সাথে সন্ত্রাসীরা চট্টমেট্রো ট- ১১০৭৪১ এবং চট্টমেট্রো ট- ১১২০৬৬ নম্বরের দুইটি ট্রাকে আগুন ধরিয়ে দেয়। ট্রাকগুলোর সাথে থাকা ড্রাইভার, হেলপার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা চট্টমেট্রো ট- ১১২০৬৬ নম্বরের ট্রাকের আগুন তাৎক্ষণিকভাবে নিভিয়ে ফেলতে সক্ষম হলেও চট্টমেট্রো ট- ১১০৭৪১ ট্রাকে দাহ্য মালামাল থাকায় তা নেভাতে সক্ষম হয়নি। ফলে ট্রাকটি এবং তাতে বহন করা মালামাল সম্পূর্ণ ভস্মিভূত হয়ে যায়। ট্রাকটিতে চাল, ডাল, আলু, কেরোসিন, কসমেটিকসসহ বাজারের বিভিন্ন ধরণের ২০ লক্ষাধিক টাকার মালামাল ছিল।
ট্রাকে অবস্থানকারী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, তারা সন্ত্রাসীদের পায়ে পড়ে ট্রাকে আগুন না লাগাতে অনুনয়বিনয় করেছিল। কিন্তু তাতে সন্ত্রাসীদের মন গলেনি। উল্টো ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও ট্রাক চালকদের মারধোর করে সন্ত্রাসীরা। এতে মহালছড়ি বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী প্রকাশ আচর্য, কামাল হোসেন, মুন্সী মিয়াসহ কয়েকজন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে সন্ত্রাসীদের দায়ের কোপে আহত মুন্সী মিয়াকে মহালছড়ি উপজেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। যাওয়ার সময় সন্ত্রাসীরা ২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে বলেও জানা গেছে।
খবর পেয়ে মহালছড়ি সেনা জোন কমান্ডার লে. কর্নেল হুমায়ুন কবীরের নেতৃত্বে সেনা সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌছে, একই সময় মহালছড়ি থানা থেকে পুলিশবাহিনীর সদস্যরাও ঘটনাস্থলে পৌছালেও পানির সঙ্কুলান না থাকায় কেউ আগুন নেভাতে পারেনি। তবে ঘটনার সাড়ে ৩ ঘন্টা পর সকাল সাড়ে আটটার দিকে রাঙ্গামাটি থেকে অগ্নি নির্বাপন দল ঘটনাস্থলে পৌছায়। কিন্তু ততক্ষণে সম্পূর্ণ ট্রাক ও মালামাল ভস্মিভূত হয়ে গেছে।
উল্লেখ্য, আগামীকাল মঙ্গলবার সাপ্তাাহিক মহালছড়ি বাজার থাকায় বাজার ব্যবসায়ীরা চট্টগ্রাম থেকে পাইকারী ক্রয় করে চারটি ট্রাকে করে বিভিন্ন মালামাল রাঙ্গামাটি-খাগড়াছড়ি সড়ক হয়ে মহালছড়ি বাজারে আসছিল। এসময় ৪টি পর্যটকবাহী বিভিন্ন ধরণের গাড়িও তাদের পেছনে অনুসরণ করে ্আসছিলো। গাড়িগুলো নানিয়ারচর উপজেলার ১৮ মাইল-কাঠালতলী এলাকায় পৌঁছালে ১৬ জন মুখোশধারী সশস্ত্র সন্ত্রাসী গাড়িগুলোকে থামিয়ে কাদের গাড়ী জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে তারা গাড়ীতে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। যাওার সময় পর্যটকদের গাড়ীতে উঠে অস্ত্রের মুখে মোবাইল ও টাকা পয়সা ছিনতাই করে নিয়ে যায়।

পড়ে দেখুন

অধিক শস্য ফলনের জন্য বিদ্যুৎ ব্যবহারে সবাইকে সাশ্রয়ী হবার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

॥ ডেস্ক রিপোর্ট ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হবার পাশাপাশি সকলকে সঞ্চয় করার …