শিরোনাম
প্রচ্ছদ / কক্সবাজার / বঙ্গোপসাগরে ৪ ফিশিং ট্রলারে জল দস্যুর হানাঃ গুলিবিদ্ধ-২

বঙ্গোপসাগরে ৪ ফিশিং ট্রলারে জল দস্যুর হানাঃ গুলিবিদ্ধ-২

॥ মুহাম্মদ জুবাইর, টেকনাফ ॥ সেন্টমার্টিনের অদূরে দক্ষিন-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরার ট্রলারে জলদস্যু হানা দিয়ে লুটপাট চালিয়েছে। এসময় জেলেদের ব্যাপক মারধর ও গুলি চালিয়েছে। দুই জন জেলে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারাত্মকভাবে আহত হয়েছে বলে ও জানা যায়।
এরা হচ্ছে কক্সবাজার পেটি স্কুল সংলগ্ন মৃত বশির আহমদ পুত্র মকবুল আহমদ মাঝি (৫০) ও উখিয়ার কুতুপালং এলাকার আবদুল হাকিমের পুত্র আবদুল শুক্কুর প্রকাাশ কামাল।
২০ মার্চ সকালে অন্যান্য ফিশিং ট্রলারের সহায়তায় সেন্টমার্টিন পৌঁছলে কোস্টগার্ড আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য টেকনাফ হাসপাতালে প্রেরণ করে।
আহত মকবুল আহমদ মাঝি জানায়, ১৬ মার্চ কক্সবাজার নুনিয়ারছড়ার এফ বি মোজাম্মেলের নামে একটি মাছ ধরার ট্রলারে করে ১৪ জন জেলে বঙ্গোপসাগরে মাছ শিকারে যায়। ১৮ মার্চ গন্তব্যস্থলে পৌঁছে রাত ৯ টারদিকে মাছ শিকারকালে জলদস্যুদের কবলে পড়ে। এসময় তাদের থেকে জলদস্যুরা টাকা, মোবাইল, মাছ লুট করে এবং জেলেদের রড দিয়ে পিঠিয়েছে। পরে তাদের উদ্দেশ্যে চরকা গুলি চালিয়ে জলদস্যুর দল সটকে পড়ে। এসময় মকবুল আহমদ মাঝির পিঠে, মাথায় এবং মুখমন্ডল ও আবদুল শুক্কুর প্রকাশ কামালের দুই পায়ে চরকা গুলি লেগে গুরুতর আহত হয়। বিষয়টি অন্যান্য ফিশিং ট্রলারের জেলেদের জানালে তাদের সহায়তায় ২০ মার্চ সকালে জলদস্যুর কবলে পড়া ট্রলারটি সেন্টমার্টিন উপকূলে ভিড়ে কোস্টগার্ডকে অবহিত করে এবং কোস্টগার্ড প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে আহতদের দ্রুত স্পীড বোট যোগে টেকনাফ হাসপাতালে নিয়ে আসে।
এদিকে শাহপরীর দ্বীপের ২টি ফিশিং ট্রলার ও জলদস্যুর কবলে পড়েছিল বলে খবর পাওয়া গেছে।১৮ মার্চ শনিবার দিবাগত রাত ১২ দিকে শাহপরীর দ্বীপের পশ্চিম দিকে বঙ্গোপসাগরে এ ঘটনাটি ঘটে বলে সংশ্লিষ্ট জেলেরা জানায়।
তথ্য সুত্রে জানা যায় শুক্রবার বিকালে টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপের বাজার পাড়ার মোঃ কায়সার ও মাঝের পাড়ার নুর হোসেনের মালিকানাধীন দু’টি ফিশিং ট্রলার অন্যান্য আরো কয়েকটি ট্রলারের সাথে সাগরে মৎস আহরণে বের হয়। এসময় গভীর রাতে অন্যদিক থেকে একটি ট্রলার এসে আকস্মিক ট্রলার দুটিতে স্বসস্ত্র হানা দিয়ে জেলেদের মারধর করে এবং ট্রলারে থাকা জাল ও অন্যান্য মালামাল লুট ট্রলারের ইঞ্জিল বিকল করে নিয়ে দিয়ে চলে যায়। পরবর্তীতে সকালে ট্রলার দু’টি সাগরে অবস্থান করা অন্য ট্রলারের সহায়তায় সেন্টমার্টিন নৌ ঘাটে পৌঁছে।
ডাকাতি হওয়া ট্রলার একটির মালিক মোঃ কায়সার জানিয়েছেন, ডাকাতরা তার ফিশিং ট্রলারে হামলা করে জাল ও মাছসহ প্রায় একলক্ষ টাকা পরিমাণের মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এসময় ডাকাত দল জেলেদেরও মারধর করে।
কোস্টগার্ড সেন্টমার্টিন ষ্টেশন সাব লেঃ আশমাদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সোমবার সকালে জলদস্যূদের কবলে পড়া জেলেরা সেন্টমার্টিন পৌঁছলে গুলিবিদ্ধ দুইজনসহ ৫ জনকে টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রেরন করা হয় এবং অপর পিঠিয়ে আহত করা ৯ জন জেলেদের সেন্টমার্টিনে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।গুলিবিদ্ব ২জনকে চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার হাসপাতালে প্রেরন করা হয় বলে জানান কর্মরত চিকিৎসক সুপ্তাদাশ।

পড়ে দেখুন

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভায় সম্মানিত সভাপতি আলহাজ¦ আবুল কালাম আজাদ এর …