শিরোনাম
প্রচ্ছদ / খাগড়াছড়ি / যুবলীগ নেতাকে হত্যার পর বাড়িঘরে আগুন, ১৪৪ ধারা

যুবলীগ নেতাকে হত্যার পর বাড়িঘরে আগুন, ১৪৪ ধারা

লংগদু উপজেলা যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম নয়ন হত্যার ঘটনায় উত্তেজনা বিরাজ করছে ওই এলাকায়। বৃহস্পতিবার দুই পাহাড়ি মোটরসাইকেল আরোহী নয়নকে ভাড়ায় নিয়ে যাওয়ার পর তাকে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে গেছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

একই সঙ্গে যুবলীগ নেতাকে হত্যার পর ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে পাহাড়িরা শুক্রবার সকালে নিজেরা নিজেদের ২০ থেকে ২৫টি বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বাঙালিরা।

এ ঘটনায় আজ শুক্রবার উপজেলা পরিষদ মাঠে এক বিক্ষোভ মিছিল থেকে হত্যাকারীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়ার আল্টিমেটাম দিয়েছে লংগদু উপজেলা যুবলীগ।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে পাহাড়িরা বলছে, বাঙালিরা তাদের শত শত বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে। এ ঘটনায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে লংগদু সদরের আশপাশে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন।

জানা যায়, নিহত মোটরসাইকেল চালক নুরুল ইসলাম উপজেলা সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। বৃহস্পতিবার ভোরে লংগদু বাইট্টা পাড়া থেকে দুই উপজাতীয়কে ভাড়া নিয়ে খাগড়াছড়ি যান তিনি। পরে দুপুর ১২টার দিকে খাগড়াছড়ি-দীঘিনালা সড়কের পাশ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নয়নকে হত্যার পর তার মোটরসাইকেলটিও ছিনতাই করা হয়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ময়নাতদন্ত শেষে লাশটি লংগদুতে নিয়ে আসার পর শুক্রবার যুবলীগ বাইট্টা পাড়া থেকে লংগদু সদর পর্যন্ত মিছিল করে। মিছিল শেষে লংগদু উপজেলা পরিষদ মাঠে এক প্রতিবাদ সমাবেশে মিলিত হয়। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বাঙালিরা নয়নের দাফন-কাফন নিয়ে যখন ব্যস্ত ছিল তখন পাহাড়িরা নিজেরা নিজেদের বাড়িঘরে আগুন লাগিয়ে বাঙালিদের ওপর দোষ চাপাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

আজ লংগদু উপজেলা পরিষদ মাঠে আয়োজিত এক প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে খুনিদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আইনের আওতায় আনার দাবিতে আল্টিমেটাম দেন যুবলীগ লংগদু শাখার সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম। এ সময় তিনি আইনের প্রতি আস্থা রেখে সকলকে শান্ত থাকারও আহ্বান জানান।

সমাবেশে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন রাঙামাটি জেলা পরিষদের সদস্য ও লংগদু আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জানে আলম, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শফিক, উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান মো. নাসির উদ্দিন, সম-অধিকারের নেতা মো. আফসার আলী ও আলমগীর হোসেন প্রমুখ।

শফিকুল ইসলাম বলেন, গতকাল দুইজন পাহাড়ি নুরুল ইসলামের মোটরসাইকেল ভাড়া করেন। এরপর থেকে তার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। পাহাড়িরা নুরুল ইসলামকে হত্যা করেছেন বলে দাবি তার (শফিকুল)।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে জনসংহতি সমিতির জেলা শাখার সভাপতি মনি শংকর চাকমা বলেন, পাহাড়িদের দায়ী করে আজ শুক্রবার সকালে বাঙালিরা তিন টিলা ও মানিকজোর ছড়া গ্রামে পাহাড়িদের দুই শতাধিক বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছেন। তারা জনসংহতি সমিতির কার্যালয়ও পুড়িয়ে দিয়েছেন।

বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা লংগদুর ইউএনও মো. তাজুল ইসলাম বলেন, লংগদুতে পাহাড়ি-বাঙালির মধ্যে সমস্যা হওয়ার কারণে সদরের আশপাশে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।

পড়ে দেখুন

অধিক শস্য ফলনের জন্য বিদ্যুৎ ব্যবহারে সবাইকে সাশ্রয়ী হবার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

॥ ডেস্ক রিপোর্ট ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হবার পাশাপাশি সকলকে সঞ্চয় করার …