শিরোনাম
প্রচ্ছদ / তৃণমূল / বান্দরবানের তিন নদীর পানি বিপদসীমার উপরে,নিন্মাঞ্চল প্লাবিত

বান্দরবানের তিন নদীর পানি বিপদসীমার উপরে,নিন্মাঞ্চল প্লাবিত

॥ রাহুল বড়–য়া ছোটন,বান্দরবান ॥ বান্দরবানে প্রবল বর্ষণে সাংঙ্গু, মাতামুহুরী ও বাঁকখালী নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানিতে তালিয়ে গেছে লামা বাজার। এসব এলাকার তিন শতাধিক লোক পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। লামা চকরিয়া সড়কের বিভিন্ন জায়গার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হওয়ায় লামা ও আলীকদম উপজেলার সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। অন্যদিকে বান্দরবানের সাথে রাঙ্গামাটির সড়ক যোগাযোগও বন্ধ হয়ে গেছে। পাহাড় ধসের কারনে বান্দরবানের সাথে রুমা উপজেলারও সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।
এদিকে নদীর পানি বৃদ্ধির কারনে লামা বাজারে পানি প্রবেশ করেছে। নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। লামা বাজারে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসতঘরে পানি উঠায় চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছে লোকজন। মাত্র ২০ দিনের ব্যবধানে লামায় আবারো জলাবদ্ধতা দেখা দেয়ায় বিপাকে পড়েছে ব্যবসায়ী ও সাধারন মানুষ। আলীকদমেও একই অবস্থা।
ভারী বর্ষণের কারনে দ্রত পানি উঠেছে। সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। অল্প দিনের ব্যবধানে লামা বাজারে পানি উঠায় সাধারন মানুষ কষ্টের মধ্যে পড়েছে। এদিকে বান্দরবান রুমা সড়কের ওয়াই জংশনসহ বেশ কয়েকটি স্থানে পাহাড় ধসে পরায় এ সড়কে যানচলাচল বন্ধ রয়েছে। সেনাবাহিনীর প্রকৌশল বিভাগ সড়ক যোগাযোগ পুনঃস্থাপিত করতে চেষ্টা চালালেও ভারী বর্ষণের কারনে নতুন করে পাহাড় ধসে পরায় সড়ক চালু করা যাচ্ছেনা বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ঠ কর্মকর্তারা।
এদিকে পাহাড় ধসে প্রাণহানী ঠেকাতে জেলা প্রশাসন সতর্কতামূলক অবস্থান নিয়েছে। পাহাড়ে পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে মাইকিং করা হচ্ছে। ভারী বৃষ্টি শুরু হওয়ায় রাতেও শহর এলাকা এবং এর আশপাশে নি¤œাঞ্চল এলাকা আর পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসকারীদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে মাইকিং করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বসবাস না করতেও অনুরোধ করা হচ্ছে।

পড়ে দেখুন

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভায় সম্মানিত সভাপতি আলহাজ¦ আবুল কালাম আজাদ এর …