শিরোনাম
প্রচ্ছদ / চট্টগ্রাম / বান্দরবানের কেওক্রাডং পাহাড়ের ৪টি পপি ক্ষেত ধ্বংস

বান্দরবানের কেওক্রাডং পাহাড়ের ৪টি পপি ক্ষেত ধ্বংস

॥ বান্দরবান সংবাদদাতা ॥ বান্দরবান পার্বত্য জেলার রুমা উপজেলার দূর্গম এলাকা কেওক্রাডং পাহাড়ের আশেপাশে অভিযান চালিয়ে ৪টি পপি ক্ষেত ধ্বংস করেছে র‌্যাব-৭ চট্টগ্রাম এর একটি দল।
র‌্যাব ৭- সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি) সকাল ৭টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত জেলার রুমা উপজেলার কেওক্রাডং পাহাড় এলাকায় এই বিশেষ অভিযান চালিয়ে পপি ক্ষেত ধ্বংস করলেও এসময় কাউকে আটক করতে পারেনি তারা।
র‌্যাব ও স্থানীয়রা জানায়, জেলার রুমা উপজেলার রেমাক্রি পাংসা ইউনিয়নের ক্যাওক্রাডং পাহাড়ের দুই কিলোমটার পাহাড়ে ছড়া-ঝিরির পাশ্ববর্তী এলাকায় গড়ে তোলা ৪টি পপি বাগানের সন্ধ্যান পেয়ে, র‌্যাব সদস্যরা পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে পপি বাগান ধংস করে দেয়। উৎপাদিত পপি গাছগুলো আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।
র‌্যাব-৭ এর কর্মকর্তা মশিউর বলেন, রুমা উপজেলা সদর থেকে প্রায় ২০ কিলোমটার দূরে কেওক্রাডং পাহাড়ের আশপাশে গভীর জঙ্গলে ৪টি পপি বাগানে চাষ হচ্ছিল। প্রায় ৭ একর জমির এই চারটি পপি ক্ষেতের খোঁজ পান তারা। বিদেশে পাচারের জন্য অবৈধভাবে এর চাষ হয়।
র‌্যাব কর্মকর্তা আরো বলেন, চারটি ক্ষেত থেকে প্রায় ৬০ কেজি পপির রস উদ্ধার করেন তারা। পরে ক্ষেত ও রস ধ্বংস করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
বান্দরবানের রুমা, থানচি ও আলীকদম উপজেলার বিভিন্ন দূর্গম এলাকায় সীমান্ত অরক্ষিত থাকার কারনে মিয়ানমারের বিভিন্ন বিদ্রোহী গোষ্ঠি পপি চাষ করে থাকে। আর পপি থেকে মাদক তৈরী করে বিভিন্ন দেশে পাচার করে থাকে। বিগত বছরগুলোতে যৌথ অভিযানে পপি বাগান ধ্বংস করে আসছে যৌথ বাহিনী।
পপি ফুলের গাছ থেকে যেমন ওষুধ তৈরির নানা উপাদান পাওয়া যায়, তেমনি এ গাছের ফল থেকেই তৈরি হয় সর্বনাশা মাদক “আফিম”। পপি গাছের কাঁচা ফলের খোসা কাটলে যে সাদা রস পাওয়া যায় তা ২৪ ঘণ্টা রোদে শুকালে পাওয়া যায় মরন নেশা আফিম। পপি গাছের বৈজ্ঞানিক নাম এই ব্যাপারের রুমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কাশেম চৌধুরী বলেন, র‌্যাব থেকে বিষয়টি আমাদের জানানো হয়নি, তবে তারা এই বিষয়ে মামলা করলে রুমা থানায় করবে।
উল্লেখ্য, বান্দরবানের মিয়ানমার সীমান্তবর্তী রুমা থানচি ও আলীকদমের দুর্গম এলাকায় স্থানীয় পাহাড়ি ও কিছু দুর্বৃত্ত দীর্ঘদিন থেকে পপি চাষ করে আসছে। পপি বাগান থেকে উৎপাদিত আফিম সীমান্ত দিয়ে মিয়ানমার ও ভারতে পাচার হয়ে থাকে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছে। সর্বশেষ গত বছরের ৬ মার্চ সেনা সদস্যরা বান্দরবানের আলীকদম উপজেলার কুরুকপাতা ইউনিয়নের লারনিং পাড়ায় ৩৫ শতক জমির উপর করা পপি বাগান ধবংস করে।

পড়ে দেখুন

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভায় সম্মানিত সভাপতি আলহাজ¦ আবুল কালাম আজাদ এর …