শিরোনাম
প্রচ্ছদ / গণমাধ্যম / রাঙ্গামাটিতে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ জেলা শাখার ২২তম প্রতিনিধি সন্মেলন ও কাউন্সিল

রাঙ্গামাটিতে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ জেলা শাখার ২২তম প্রতিনিধি সন্মেলন ও কাউন্সিল

শান্তি চুক্তির মৌলিক বিষয়গুলো বাস্তবায়ন না হওয়ায় এখানকার পরিস্থিতি দিন দিন জটিল আকার ধারণ করছে। আর চুক্তি বাস্তবায়ন না করার জন্য অনেকেই ওঠে-পড়ে লেগেছে। যার ফলে পার্বত্যাঞ্চলে অস্থিতিশীল পরিবেশ বিরাজ করছে। এর স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে হলে, পার্বত্যাঞ্চলে যে সমস্যা এটি শান্তিপূর্ণভাবে চুক্তি বাস্তবায়নের মাধ্যমে সমাধান করতে হবে।
বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারী) সকালে প্রতিক্রিয়াশীল, সুবিধাবাদী ও চুক্তি বিরোধীদের প্রতিহত করুন, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের ছাত্র-যুব সমাজ বৃহত্তর আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়–ন এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে রাঙ্গামাটিতে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ জেলা শাখার ২২তম প্রতিনিধি সন্মেলন ও কাউন্সিল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সহ-সভাপতি ও সাবেক সাংসদ উষাতন তালুকদার এসব কথা বলেন।
রাঙ্গামাটি সাংস্কৃতিক ইনষ্টিটিউট মিলনায়তনে প্রতিনিধি সন্মেলনে এসময় পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সভাপতি রিন্টু চাকমার সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি সুমন মারমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম যুব সমিতির জেলা সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাগর ত্রিপুরা নান্টু, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সাম্পাদিক শান্তি দেবী তঞ্চঙ্গ্যা প্রমুখ।
এর আগে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন সাবেক সাংসদ উষাতন তালুকদার। বিকালে দ্বিতীয় পর্বে সাংগঠনিক কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা সভা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনিুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উষাতন তালুকদার বলেন, পার্বত্য চুক্তির মৌলিক বিষয়গুলো এখনো অবাস্তবায়িত রয়েছে। ফলে এখানকার পরিস্থিতি নানান জটিলতা আকার ধারন করছে। তাই পার্বত্য চট্টগ্রামে সমস্যাগুলো বিরাজ করছে তা শান্তিপূর্নভাবে সমাধান করা যেতো একমাত্র পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নের মাধ্যমে।
তিনি আরো বলেন, পার্বত্যাঞ্চলে যারা বাংলা ভাষাভাষি রয়েছেন তাদের বিষয়গুলো আমলে রেখে তাদের সমস্যাগুলোর একটা সমাধানের দিকে যেতে হবে। এটিকে অহেতুক ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে মনগড়াভাবে রেখে রেখে দিলে কারো মঙ্গল হওয়ার কথা নয়। তাই আমাদের বুঝতে হবে এবং সহযোগিতা রাখতে হবে। যাতে করে চুক্তি বাস্তবায়ন করা যায়। তাই দ্রুত জটিলতা নিরসন করতে পার্বত্য শান্তিচুক্তি পূর্ণ বাস্তবায়নের জন্য তিনি আহবান জানান।
এরপর মিলন কুসুম তঞ্চঙ্গ্যাকে সভাপতি, জগদীশ চাকমাকে সাধারণ সম্পাদক ও ইয়াংরাও ম্রোকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ২৭ সদস্য বিশিষ্ট রাঙ্গামাটি জেলা কমিটি ঘোষণা করা হয়। নতুন কমিটিকে শপথবাক্য পাঠ করান পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সুমন মারমা।

পড়ে দেখুন

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

॥ ডেস্ক রিপোর্ট ॥ অমর একুশে ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ঐতিহাসিক ভাষা আন্দোলনের শহীদদের …