শিরোনাম
প্রচ্ছদ / গণমাধ্যম / রাঙ্গামাটি পৌর নির্বাচনে এবারও হচ্ছে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হে হচ্ছে প্রার্থী আকবর না হাবিব ?

রাঙ্গামাটি পৌর নির্বাচনে এবারও হচ্ছে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হে হচ্ছে প্রার্থী আকবর না হাবিব ?

॥ নন্দন দেবনাথ ॥ রাঙ্গামাটি পৌরসভার মেয়র প্রার্থী নিয়ে এখনো ঝুলে আছে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্ত। কে পাচ্ছে মনোনয়ন বর্তমান মেয়র আকবর না প্রাক্তন মেয়র হাবিব। এই নিয়ে রাঙ্গামাটি পৌরসভার সাধারণ মানুষের মাঝে জল্পনা কল্পনা শুরু হয়েছে। এই দুই জনকে নিয়ে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপ বিভক্ত হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন অনেক নেতাকর্মী। রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের মাঝে এই দুই জনকে নিয়ে চলছে চরম উত্তেজনা। একটি পক্ষ বলছে হাবিব হবে এবারের মেয়র প্রার্থী আরেক পক্ষ বলছে আকবর হবে মেয়র প্রার্থী। তবে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে ২ জনের নাম লিখে কেন্দ্রে নাম পাঠিয়েছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে। তবে কেন্দ্র থেকে আওয়ামীলীগের পক্ষে মনোনয়ন পেতে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে আরো বেশ কয়েকজন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছে।
বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছে রাঙ্গামাটি পৌর আওয়ামীগের সভাপতি মোঃ সোলায়মান বাদশা, রাঙ্গামাটি পৌর আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ মঈন উদ্দিন সেলিম, রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা চেয়ারম্যানের বড় ভাই বিশিষ্ট তেল ব্যবসায়ী মোঃ মনিরুজ্জামান মহসিন রানা সহ আরো বেশ কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে।
এদিকে রাঙ্গামাটি পৌরসভার নির্বাচনকে ঘিরে কোন ধরনের ভুল সিদ্ধান্ত আসলে রাঙ্গামাটি পৌর নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আসতে পারে এমনটাই মনে করছেন সাধারণ আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা। রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের একটি সুত্র জানায় রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরীর সাথে রাঙ্গামাটি আওয়ামীলীগের উচ্চ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সাথে দীর্ঘদিনের বিরোধের কারণে প্রাক্তন মেয়র হাবিবুর রহমান হাবিবকেই বেছে নিতে চাচ্ছে আওয়ামীলীগের একাংশ। তবে দলের আরেকটি অংশ বলছে বর্তমান মেয়রের উপর জনগনের আস্থা রয়েছে। দলের অল্প কিছু নেতাকর্মীর কারণেই রাঙ্গামাটি পৌর নির্বাচনের মেয়র প্রার্থী ঘোষণা নিয়ে দ্বিধায় পড়েছে।
২০১৫ সালে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীগের সিদ্ধান্তে আকবর হোসেন চৌধুরী মেয়র প্রার্থী হলেও বিদ্রোহী প্রার্থী হিসাবে রাঙ্গামাটিতে দুই জন আওয়ামীলীগের প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করেছেন। তার মধ্যে একজন সাবেক মেয়র ও বর্তমান মেয়র প্রার্থী মোঃ হাবিবুর রহমান হাবিব ও সনাতন সম্প্রদায়ের পক্ষ অমর কুমার দে। সেই সুবাদে রাঙ্গামাটি জেলায় আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতাকর্মীরা বিদ্রোহী প্রার্থী হাবিবের অফিস ভাংচুর সহ হাবিবকে নির্বাচনী প্রচারণা ব্যাপক বাধা প্রদান করেন। পরবর্তীতে দলের নেতাকর্মীদের চাপের মুখে শেষ মুহুর্তে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের প্রার্থী আকবর হোসেনকে সমর্থন দিতে বাধ্য হয় হাবিবুর রহামন হাবিব। রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয় মোঃ আকবর হোসেনকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সড়ে দাঁড়ায়। তারপর ও তিনি বেশ কিছু ভোট পায় নির্বাচনে। অপরদেিক অমর কুমার দে’কেও নেতাকর্মীদের চাপের মুখে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিয়ে আকবর হোসেনকে সমর্থন দিয়ে বসিয়ে দেয় আওয়ামীলীগের সিনিয়ররা।
অন্যান্য দিকে আওয়ামীলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী বলেন আওয়ামীলীগের কোন ধরনের ভুল সিদ্ধান্তের কারণে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগ আবারো হারাতে পারে এই সিট। যা ২০১১ সালে পৌর নির্বাচনে ভুল সিদ্ধান্তের কারণে বিএনপির সাইফুল ইসলাম ভ’ট্টো মেয়র নির্বাচিত হয়েছে। যার কারণে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদারকে নানা মুখী প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয় বলে জানান তারা।
এদিকে রাঙ্গামাটি পৌর নির্বাচনের দামাডোল বেজে না উঠলেও রাঙ্গামাটির জেলা বিএনপি ও আঞ্চলিক রাজনৈতক দল জেএসএস বসে আছে আওয়ামীলীগ কাকে প্রার্থী দিচ্ছে সেই দিকে তাকিয়ে। আওয়ামীলীগের প্রার্থীর উপর নির্ভর করে রাঙ্গামাটি জেলা বিএনপি ও আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল জেএসএস প্রার্থী ঘোষণা করবে এমনটাই ভাবছেন তারা।
২০১৫ সালে আওয়ামীলীগের প্রার্থী মোঃ আকবর হোসেনের বড় জয়ের ন্যেপথ্যে ছিলো আওয়ামীলীগের ঐক্যবদ্ধতা। রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগ ছাত্রলীগ, যুবলীগ সহ সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা একত্রিত হয়ে রাঙ্গামাটির বিভিন্ন ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে চষে বেড়িয়েছেন। ভোট চেয়েছেন আওওয়ামীলীগের প্রার্থী নৌকার প্রতীকের জন্য। রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা একক ভাবে রাঙ্গামাটির বিভিন্ন এলাকায় ভোটারদের মন জয় করার কারণে বিশাল ব্যবধানে আওয়ামীলীগের প্রার্থী আকবর হোসেনকে জয় লাভ করাতে পেরেছে।
আওয়ামীলীগের প্রার্থী জয়ের পর থেকে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের সাথে সম্পর্কের টানা পোড়ান রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের কাউন্সিলকে ঘিরে আরো বেড়ে যায়। দুই দলে বিভক্ত হয়ে পড়ে আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতাকর্মীদের মাঝে। সেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে রাঙ্গামাটি জেলা ছাত্রলীগের মাঝে। অন্যান্য অঙ্গ সংগঠন গুলোর মাঝে দ্বিধাবিভক্ত না থাকলেও কিছু কিছু মতপাথর্কের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে সংগঠন গুলোর মাঝে এমনটাই মনে করছে আওয়ামীলীগের তৃণমুল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।
তবে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগ ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্তের উপর তাকিয়ে আছে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের তৃণমুল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। তেমনি আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি ও রাঙ্গামাটি জেলা বিএনপিও রাঙ্গামাটি আওয়ামীলীগের প্রার্থী ঘোষণার দিকে তাকিয়ে আছে র্তীর্থের কারকে মতো। দল যে দিকেই সিদ্ধান্ত নেক না কেন গতবারের মতো এবারও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী থাকছে এবারের নির্বাচনে।

পড়ে দেখুন

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

“চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ রক্ষা” পরিষদের নিয়মিত মাসিক সভায় সম্মানিত সভাপতি আলহাজ¦ আবুল কালাম আজাদ এর …