শিরোনাম
প্রচ্ছদ / গণমাধ্যম / পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন ও দোয়া মোনাজাত

পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন ও দোয়া মোনাজাত

॥ ডেস্ক রিপোর্ট ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করে দোয়া ও মোনাজাত করেছেন। সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে পদ্মা সেতু হয়ে গ্রামের বাড়িতে এটিই প্রধানমন্ত্রীর প্রথম সফর।
সোমবার (৪ জুলাই) বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় নিজের পৈতৃক বাড়ি পরিদর্শন করেন এবং পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করে দোয়া মোনাজাত করেন। এসময় তিনি ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় এবং কন্যা সায়মা ওয়াজেদকে সঙ্গে নিয়ে সেখানে ফাতেহা পাঠ করেন ও জাতির পিতা এবং ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নৃশংস হত্যাযজ্ঞের অন্যান্য শহীদদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাতে যোগ দেন।
শেখ হাসিনা ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু এবং দেশের অব্যাহত শান্তি, অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি কামনা করেও দোয়া করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব এম এম ইমরুল কায়েস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
পুষ্পস্তবক অর্পণের পর, তিনি স্বাধীনতার মহান স্থপতির স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধার নিদর্শন হিসেবে সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালোরাতে বিপথগামী কিছু সেনা সদস্যের হাতে পরিবারের বেশিরভাগ সদস্যসহ নৃশংসভাবে খুন হন।
এর আগে, সকাল ৮টায় গণভবন থেকে টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে রওয়ানা দেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়ি বহর সোমবার সকাল ৮ টা ৫০ মিনিটে মাওয়া প্রান্ত দিয়ে পদ্মা সেতুতে উঠে।
প্রধানমন্ত্রী মাওয়া টোল প্লাজায় ৬ নম্বর লেন দিয়ে প্রবেশ করেন। গাড়ি বহরের টোল পরিশোধ করেন সজীব ওয়াজেদ জয়। বহরে ছিল ২৯ গাড়ি। ২৪ হাজার ২০০ টাকা টোল পরিশোধ করেন।
স্বপ্নজয়ের সেতু উদ্বোধনের ১০ দিনের মাথায় সরকার প্রধানের পদ্মা সেতু অতিক্রম ঘিরে পদ্মার দুই পারের মানুষ ছিল উচ্ছ্বসিত। সেতু অতিক্রমকালে প্রধানমন্ত্রী সেতুর মাঝামাঝি স্থানে গাড়ি থেকে নামেন।
প্রধানমন্ত্রীর পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় ও কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুলসহ প্রায় ৫ মিনিট সেতু অবস্থান শেষে আবার গাড়িতে উঠে সেতু অতিক্রম করেন।
প্রধানমন্ত্রী জাজিরা প্রান্তে উদ্বোধনী চত্বরেও কিছু সময় অবস্থান করেন। পিতা ও কন্যার ম্যুরাল ও ইলিশের ভাস্কর্যসহ চত্বরটি ঘুরে দেখেন। পরে জাজিরা প্রান্তের ২ নম্বর সার্ভিস এরিয়ায় সকালের নাস্তা করে টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে রওনা হন।
প্রধানমন্ত্রী সড়ক পথে টুঙ্গিপাড়া গেলেও রাজধানীতে ফেরার কথা রয়েছে হেলিকপ্টারে।

পড়ে দেখুন

যথাযোগ্য মর্যাদায় বান্দরবানে একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্র্জাতিক মার্তৃভাষা দিবস উদযাপন

॥ বান্দরবান প্রতিনিধি ॥ বর্ণাঢ্য কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে বান্দরবানে পালিত হচ্ছে অমর একুশে। একুশের প্রথম …